সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটা মেয়েকে নিয়ে এমন নোংরামি করা উচিত নয়, এটা অন্যায়: জামশেদ শামীম

0
108

 ইফতেখার আহমেদ নিপুঃ মিডিয়া জগতে বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের নতুন আলোচ্য বিষয় হয়েছে ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ’র ফলাফল ও বিতর্কিত বিজয়ী এভ্রীলকে নিয়ে। নানাভাবে ট্রোল করা হচ্ছে আয়োজক, বিচারক এবং এভ্রীলকে নিয়ে। ইতোমধ্যেই বিভিন্নজনে তাদের মতামত ব্যক্ত করেছেন নিজেদের ফেসবুক টাইমলাইনে। যেমন, তরুন অভিনেতা জামশেদ শামীম তাঁর ফেসবুক পোস্টে লেখেন… “লেবু বেশি কচলালে তিতা লাগে . . . অনেকতো হয়েছে, এবার একটু থামা উচিৎ । অতীত নিয়ে ঘাটাঘাটি বন্ধ করেন । তার কথা বাদ দিলাম, এসব কচলিয়ে আপনার কুরুচির প্রকাশটাও হচ্ছে কিন্তু ঠিকঠাক ভাবে । নাকি আরো একটি সুইসাইড নোটের জন্য এই নোংরা আনন্দে মেতেছেন ? যদি মেয়েটা সত্যি কোন অঘটন ঘটায় তবে এর জন্য আপনিও অপরাধি থাকবেন । ভাবুন. . .”

পরে আলাপচারিতার সময় জামশেদ শামীম বলেন – আমাদের দেশে ও বিশ্বে হাজারটা সুন্দর বিষয় আছে কথা বলার । আমি আসলে চাইনা একটা মেয়েকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কেউ এমন নোংরামি করুক, এটা অন্যায় । এতে করে একটা মেয়ে মানসিক ভাবে বিধ্বস্ত হয়ে যায় । সুইসাইড পর্যন্ত করে ফেলতে পারে। তাই এসব বন্ধ করা উচিৎ । কেন এভ্রিলকে নিয়ে অপমানজনক ট্রল করা হচ্ছে, কেন তাঁর অতীত ঘাঁটাঘাঁটি হচ্ছে ?যদি তাঁর বিয়ে হয়েও থাকে সেটা বাল্য বিয়ে, একটা মেয়ে যদি তাঁর জীবনের যুদ্ধ করে সেই শিকল থেকে বেরিয়ে আসতে পারে, এতে সমাজের মানুষেরা কেন ভ্রু কুঁচকাতে হবে? নাকি আমাদের সমাজ ও মানুষেরা এখনো চায় যে বিয়ে বা বাল্য বিয়ের পরে একটা মেয়েকে ঘরের কোনেই রেখে দিবে । পরিবার ভুল করে যদি একটা মেয়েকে অন্যায় ভাবে তাঁর অনিচ্ছায় বিয়ে বা বাল্য বিয়ে দিয়েও থাকে এবং সেই মেয়ে যদি সেই অভিশপ্ত শিকল থেকে বের হয়ে নিজের পরিচয়ে পরিচিত হতে পারে তাকে অবশ্যই আমাদের সাদুবাদ জানানো উচিৎ। অনেকতো হয়েছে, এবার সত্যি থামা উচিৎ । অতীত নিয়ে ঘাটাঘাটি বন্ধ করেন । নারীদের সম্মান দেয়া উচিৎ প্রতিটা মানুষের । কারন, আমাদের মাও একজন নারী । তাই একজন নারীকে যেকোনো ভাবে অপমান করা মানেই “মা” জাতিকে অপমান করা ।

এভ্রিরেল বিয়ে ও তথ্য গোপন করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি মনে করি বিয়ে একটা মানুষের কোন ভাবেই অযোগ্যতা হতে পারেনা । কিন্তু এখন মনে হচ্ছে “বিয়ে” নারীর জন্য নিজের অযোগ্যতা আর পুরুষের জন্য আরেক জনকে অযোগ্য করে দেয়া । আর একটা মেয়ের ভার্জিনিটি নিয়ে কথা বলার আপনি কে ? যারা এসব নিয়ে বাড়াবাড়ি করছে তাদের ইতর শ্রেণীর প্রাণী মনে হয় আমার কাছে । এখন হয়তো তারা ছুটবে নতুন মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ জেসিয়া ইসলাম-এর অতীত ঘাঁটাঘাঁটি করতে । যেহেতু এটা মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতা, উনাদের নিয়ম অনুযায়ী মিসেসরা অংশগ্রহণ করতে পারবে না, তাই এটা নিয়ে আর কিছু বলার নেই । আর ভুলটা যদি হয় ইচ্ছে করে সেটা আর তখন ভুল থাকে না ! সেটা হয়ে যায় অন্যায় । প্রকৃতি আমাদের সব হিসাব ঠিকঠাক বুঝিয়ে দেয় । এখান থেকে শিক্ষা নিয়ে আগামী দিনগুলোতে সুন্দরের সাথে বসবাস করা উচিৎ ।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের এই নোংরা প্রচারণা ও একজন নারীকে অপমানের বিরুদ্ধে এই ভাইবেই প্রতিবাদ জানান তরুন অভিনেতা জামশেদ শামীম । তিনি আর বলেন, “এভ্রিল হতে পারতো বাল্য বিবাহের বিরুদ্ধের একজন প্রতিবাদী মুখ । কিন্তু কষ্ট এটাই যে আমাদের সমাজের কিছু মানুষ তাকে নিয়ে বাজে ভাবে ট্রল করছে । আমি বিশ্বাস করি এভ্রিল সাহসী ও বুদ্ধিমান মেয়ে, সে ভেঙ্গে পড়বে না এই সবে । বরং সে নিজেকে আরো যোগ্য করে গড়ে তুলবে আগামীর জন্য । শুভ কামনা এভ্রিলের জন্য । আর নতুন মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ জেসিয়া ইসলাম-কেও অভিনন্দন, আশা করি সে সুন্দর ভাবেই বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে উপস্থাপন করবে ।।

Facebook Comments