যুবলীগের বহিষ্কৃত কর্মী গ্রেফতার

0
426

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর থানা উপজেলা যুবলীগের বহিষ্কৃত কর্মী এম ডি সেলিম আজ সকালে গ্রেফতার হয়েছে । তার বাড়ি উক্ত জেলার ভূঞাপুর থানার ঘাটান্দী গ্রামে।

গত রাতে এম ডি সেলিম ও তার দলবল নিয়ে ভূঞাপুরে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জহের, জেলা যুবলীগের বড় মনির, ছোট মনির ও মিরনসহ বিভিন্ন বড় পর্যায়ের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে কূ-রুচিপূর্ণ মিথ্যা ও অপবাদমূলক পোস্টার দেয়ালে দেয়ালে লাগিয়ে রাখে। যা খুবই অসামাজিক ও বেমানান ছিল।

খবর পেয়ে ভূঞাপুর পৌর যুবলীগের সভাপতি জনাব মনিরুল ইসলাম বাবু তার জেলা যুবলীগ নেতাদের বিষয়টি জানান। এখবর শুনে তারা ভূঞাপুর থানায় জানায় এবং ব্যবস্থা চান । পরে যুবলীগের সভাপতি মনিরুল ইসলাম বাবুর নেতৃত্বে ওই রাতেই সমস্ত পোস্টার তুলে ফেলা হয়। বাবু জানান, এখবর শুনে এম ডি সেলিম ও তার দলবল নিয়ে তার ও তার দলের নেতা কর্মীদের ওপর হামলা চালায়। তিনি আরও জানান, বিষয়টি রাষ্ট্রদোহীতার সামিল।

এই ঘটনার পর পুলিশ সেলিমকে ধরার জন্য অভিযান চালায়। কিন্তু পুলিশের বিষয়টি সেলিম আগে জেনে ফেলে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়।

তবে আজ সকালে পুলিশ তাকে ধরতে ভূঞাপুরে তল্লাশি করে । পরে তার বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। আর ১১ টার সময় তাকে টাঙ্গাইল জেলা জজ কোর্টে চালান করে দেয়া হয় ।

তথ্যসূত্রে জানা গেছে ভূঞাপুরে বেশ কয়েক বছর ধরেই এই সেলিম বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে লিপ্ত ছিলেন । বিভিন্ন দোকান-পাট, ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান , ঠিকাদার ও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদা তুলতো । তার চাঁদাবাজির পরিমাণ দিনকে দিন বেড়েই চলে। বিভিন্ন গ্রাম থেকে শহরের মানুষ তার জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে পরে । সে রাতের অন্ধকারে তার দলের ক্যাডারদেরকে দিয়ে বিভিন্ন রাহাজানি,ছিনতাই, ডাকাতি কাজ করাতো । সেলিম ইয়াবা ব্যবসার প্রসার প্রতিনিয়ত ঘটাচ্ছিল বলে জানা যায়।

এখবর শুনে ভূঞাপুরের জনগণ স্বস্থির নিঃশ্বাস ফেলেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক, কতিপয় ব্যক্তি বলেন এবার হয়তো ভূঞাপুরে শান্তি ফিরে আসবে ।

Facebook Comments